মদিনার একদল গবেষক কর্তৃক কোভিড-১৯ (COVID-19) এর প্রতিষেধক আবিষ্কারের দাবি

মদিনার একদল গবেষক কর্তৃক কোভিড-১৯ (COVID-19) এর প্রতিষেধক আবিষ্কারের দাবি

সৌদি আরবের মদিনায় অবস্থিত তাইবা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল মেডিকেল গবেষক দাবি করেছেন যে, তারা কোভিড-১৯ (COVID-19) এর রোগীদের সফল চিকিৎসা দিতে সক্ষম হয়েছেন। সেই সাথে তাদের দেয়া এই পথ্য এই ভাইরাস রোধ করতেও সক্ষম। তাদের গবেষণালব্ধ পথ্যে বিশেষভাবে ব্যবহার করা হয় কালোজিরা যাকে নাইজেলা স্যাটিভা (nigella sativa), বলা হয়ে থাকে। এটা করা হয়েছে রাসুল (সাঃ) এর হাদিসে বর্ণিত চিকিৎসা বিধান থেকে।

খালিদ ইবনে সাদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমরা রওয়ানা হলাম এবং গালিব ইবনে আবজারও আমাদের সাথে ছিলেন। পথিমধ্যে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লেন। তিনি অসুস্থ থাকতেই আমরা মদীনায় পৌঁছে গেলাম। ইবনে আবূ আতীক (রাঃ) তাকে দেখতে এলেন। তিনি আমাদের বললেন, তোমরা এই কালো দানাগুলো (কালিজিরা) ব্যবহার করবে। তা থেকে পাঁচটি বা সাতটি দানা নিয়ে সেগুলো পিষে তেলের সাথে মিশিয়ে নাকের এপাশে ওপাশে অর্থাৎ উভয় ছিদ্রপথে ফোঁটা ফোঁটা করে দাও। কেননা আয়েশা (রাঃ) তাদের নিকট হাদীস বর্ণনা করেছেন যে, তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে বলতে শুনেছেনঃ এই কালো দানা ‘সাম’ ব্যতীত সব রোগের ঔষধ। আমি জিজ্ঞেস করলাম, ‘সাম’ কী? তিনি বলেনঃ মৃত্যু।

সহীহুল বুখারী ৫৬৮৭, তাহকীক আলবানীঃ সহীহ।


এই গবেষণা পত্রটি আমেরিকান জার্নাল অব পাবলিক হেলথ রিসার্চ প্রকাশ করেছে। সেই সাথে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে যেন সবাই পড়তে পারে। এই পথ্যের নাম দেয়া হয়েছে TaibUVID (তাইবুভিড), যার মানে দাঁড়ায় Taibah University anti-COVID-19 treatment.

সূত্রঃ http://www.sciepub.com/AJPHR/abstract/11658

মদিনার মেডিকেল রিসার্চ টিম কর্তৃক যে তথ্য দেয়া হয়েছে, তাতে নিম্নরুপ ব্যবহারবিধির নির্দেশনা দেয়া হয়েছেঃ

  • ১ চা-চামচ অর্থাৎ ২ গ্রাম কালিজিরা
  • ১ চা-চামচ অর্থাৎ ১ গ্রাম ক্যামোমাইল (Chamomile)
  • ১ টেবিল-চামচ প্রাকৃতিক মধু ।

এরপর উপরের তিনটি উপাদান ভালোভাবে মেশাতে হবে। মিশানোর পর ভালোভাবে চিবিয়ে এবং গিলে খেতে হবে। এই পথ্য সেবনের পর আপনি যদি সাইট্রিক এসিড যুক্ত জুস খেতে পারেন তাহলে খুব ভালো হয়। সাইট্রিক এসিড যুক্ত জুস বলতে কমলা, লেবু অথবা তেঁতুলের জুস হতে পারে।

প্রতিরোধক হিসেবে যেভাবে খাবেন

এই মিশ্রন দৈনিক একবার করে খেতে হবে যতদিন না এই মহামারী পুরোপুরি দূর হয়ে যায়। তাহলে ইন শা আল্লাহ, আল্লাহর ইচ্ছায় করোনা COVID-19 আপনাকে আক্রমন করলেও দেহের ভিতরে বাসা বাঁধতে পারবেনা।

চিকিৎসা্র জন্য ব্যবহারবিধি

যদি কেউ করোনায় আক্রান্ত হয়ে যায়, বা কারো শরীরে করোনার COVID-19 উপসর্গ দেখা দেয়, তাহলে উপরের পথ্যটি নিচের নির্দেশনা অনুযায়ী সেবন করতে হবে।

  • প্রতিদিন পাঁচবার এই ওষুধটি খেতে হবে পুরো এক সপ্তাহের জন্য। এক সপ্তাহ হয়ে গেলে এরপর দৈনিক একবার করে খেতে হবে, যতদিন না করোনা COVID-19 মহামারী নির্মূল না হয়।
  • যদি অনেক বেশি কাশি থাকে অথবা শ্বাসকষ্ট হয়, তাহলে কালিজিরার তেল অথবা লবঙ্গের (clove) তেল এর ভাপ নিতে হবে অথবা পানিতে ফুটানোর পর কালোজিরা এবং ক্যামোমাইল এর যে অংশ বাকি থাকে সেটার ভাপ নিতে হবে
  • নেবুলাইজারের মাধ্যমে ভাপ নিলে কাজটি খুব সহজেই করা সম্ভব হবে।
  • আর যদি নেবুলাইজার না থাকে, তাহলে আরেকটা সহজ উপায় আছে ভাপ নেয়ার। একটি পাত্রে ১ টেবিল চামচ কালিজিরা, ১ টেবিল চামচ ক্যামোমাইল chamomile এবং এক কাপ পানি নিয়ে পাত্রটি আংশিকভাবে ঢেকে নিন। এবার হাল্কা তাপে গরম করে সেই ভাপ নাকে নিন। এভাবে দিনে ৫-৬ বার করুন।

ডিপার্টমেন্ট অফ ক্লিনিক্যাল বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার মেডিসিন, মেডিসিন ইউনিভার্সিট্‌ মদিনা সৌদি আরবের একটি প্রকাশিত জার্নালে,

আমরা প্রাকৃতিক গাছ গাছরার উপকারিতা নিয়ে বেশ ভালভাবে গবেষণা করে দেখেছি যে, কালিজিরা, ক্যামোমাইল এবং লবঙ্গ করোনাভাইরাস এর চিকিৎসায় অত্যন্ত কার্যকরী এমনকি এই গুলির মাধ্যমে করোনাভাইরাস এর বৃদ্ধি এবং সংক্রমণকে পুরোপুরি দূর করা সম্ভব।

ডক্টর সালেহ মোহাম্মদ আল সাঈদ যিনি ১০ জনের একটি গবেষণা দলের প্রধান তিনি বলেছেন

মহান আল্লাহ তায়ালার অসীম দয়ায়, যে সমস্ত করোনা রোগী উপরের পথ্য গ্রহণ করেছেন, তারা সবাই ভালো হয়ে গিয়েছেন। প্রথম যে দিন থেকে তারা খাওয়া শুরু করেছেন, সেদিন থেকে এক সপ্তাহের মধ্যেই ওই সমস্ত রোগী ভালো হয়ে গিয়েছেন। উল্লেখ্য যে তারা সবাই বাসায় বসেই এটি তৈরি করেছেন এবং নিয়মিত গ্রহণ করেছেন।

আমরা এটি মেডিকেল জার্নালে প্রকাশ করেছি এবং সবার জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছি। হয়তো বা আল্লাহর ইচ্ছায় এর মাধ্যমে অনেকেই উপকৃত হবেন এবং অনেকেরই জীবন বেচে যাবে। মহান আল্লাহ তা’আলা আমাদের এই নিয়ত সম্পর্কে অবশ্যই জানেন। মহান আল্লাহতালার মহত্ব ঘোষণা করেই বলছি, এই চিকিৎসায় সমস্ত রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মহান আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে হেফাজত রাখুন। হে আল্লাহ আমি আমার বার্তা পৌঁছে দিয়েছি, আপনি সাক্ষী থাকুন।

কালিজিরা এবং ক্যামোমাইল এর ব্যাপারে গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে যে, এটা করোনা ভাইরাসের বৃদ্ধিকে সর্বোচ্চ আকারে দমন করে। সেই সাথে কালিজিরা মানবদেহে ইমিউনিটি অথবা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি বৃদ্ধি করে থাকে। মানবদেহে টিস্যু প্রটেক্টিভ ইফেক্ট এর প্রয়োগ ঘটায় এবং সেইসাথে খুব দক্ষতার সাথে এবং ইফেক্টিভলি co-morbidities চিকিৎসা সাধন করে।

খাঁটি মধু যখন মুখ দিয়ে কেউ খায়, তখন এটা গলায় এন্টিভাইরাল ইফেক্টের প্রয়োগ ঘটায়, দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং সেইসাথে প্রত্যেক টিস্যু প্রটেক্টিভ ইফেক্ট ঘটায়।

গবেষকদের বক্তব্য অনুযায়ীঃ

আমাদের নির্দেশিত TaibUVID এবং TaibUVID প্লাস এর চিকিৎসা পদ্ধতি অত্যন্ত কার্যকর। তথ্য উপাত্তের মাধ্যমেই আমরা তা বলছি।

Leave a Reply