আপনার শিশুর ব্যক্তিত্ত গঠনে সাতটি টিপ্‌স


১।       আপনার শিশুর সব কথা মন দিয়ে শুনুন। তাঁরা যখন কিছু বলতে চায়, সম্পূর্ণ মনযোগ দিন, এক মুহুর্তের জন্যও মনযোগ সরাবেন না। আপনার হাতে থাকা স্মার্ট ফোনের দিকে ভুলেও তাকাবেন না। আপনি যদি অকুন্ঠ মনযোগ দিয়ে আপনার শিশুর কথা শুনে থাকেন, তাহলে আপনার শিশু আত্নবিশ্বাসী হয়ে গড়ে উঠবে। 
২।       আপনার শিশুকে কোন কাজ করার ব্যাপারে যখন নিষেধ করবেন, তখন ভালভাবে বুঝিয়ে বলুন। ধমকাবেন না, শপথ করাবেন না। তাকে বলুন, আপনি তাঁকে বিশ্বাস করেন। এভাবে তাঁদের সততা এবং আত্ন-নির্ভরশীলতা গড়ে তুলুন।  
৩।      তাদেরকে নিজে নিজে সিদ্ধান্ত নিতে দিন। তাঁদের পছন্দকে মূল্যায়ন করুন। এর ফলে তাঁদের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা তৈরী হবে। 
৪।       তাদেরকে ধমকাবেন না, আপনার ক্রোধান্বিত মুখ বা অবয়ব তাঁকে দেখাবেন না। আপনার ভয়ে হয়তো তাঁরা চুপচাপ থাকবে, কিন্তু আপনার অনুপস্থিতিতে সেটা থাকবেনা। চেষ্টা করুন তাঁদের তাকওয়া গঠন করতে।  
৫।       তাদেরকে একা একাই তাঁদের সমস্যা নিয়ে কাজ করতে দিন। শুধু প্রয়োজনে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। তবে কখনই সম্পূর্ণ কাজ করে দিবেন না। তাদের মনে এমন অনুভুতি সৃষ্টি করুন যে, যেন তারাই আসলে কাজটি করেছে।  
৬। বাচ্চারা অযথা অনেক প্রশ্ন করবে এবং এটাই স্বাভাবিক। তাঁদের এই প্রশ্নবানে বিরক্ত হবে না, ক্ষেপে যাবেন না। বরং প্রতি উত্তরে সহজ সরল ভাবে উত্তর দিন। কিন্তু মিথ্যা বলবেন না। আপনি যদি তাঁদের প্রশ্ন গুলোর উত্তর না দেন, তাহলে তাঁরা হয় তাঁদের বন্ধুদের জিজ্ঞাসা করবে, আর না হলে গুগল চাচাকে প্রশ্ন করবে। বুঝতেই পারছেন এর পরিণতি কি হতে পারে।  
৭।       পরিবারের ছোটখাটো বিষয়ে আপনার সন্তানের মতামত গ্রহণ করুন। এবং মাঝে মাঝে তাঁরা যেভাবে বলে সেভাবে কাজটি করুন। এটা তাঁদের মাঝে আত্নবিশ্বাস এবং মূল্যবোধ সৃষ্টি করবে।
(শাইখ হিশাম আল আওয়াদি হতে সংকলিত)

Leave a Reply